05:20pm  Monday, 30 Nov 2020 || 
 ||


লাইফ-স্টাইলের ব্যাপক পরিবর্তনের ফলে অল্প বয়সী মেয়েদের মধ্যে ব্রেস্ট ক্যানসারের প্রবণতা বাড়ছে। সম্প্রতি কলকাতার অ্যাপোলো গ্লেনেগেলস হাসপাতাল ও ব্রেস্ট ইমেজিং সোসাইটি অফ ইন্ডিয়ার যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক সম্মেলনে ব্রেস্ট ক্যানসার সংক্রান্ত নানান তথ্য উঠে আসে। এ বিষয়ে অ্যাপোলো হাসপাতালের কনসালট্যান্ট ব্রেস্ট রেডিওলজিস্ট ডা. সুমা চক্রবর্তী জানান, ২০১২ সালে শুধুমাত্র ভারতেই স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ৭০ হাজারেরও বেশি মহিলা মারা গেছে। গত দুবছর সংখ্যাটা আরও বেড়েছে। ব্যাপারটা যথেষ্ট অ্যালার্মিং হলেও ভয় পাওয়ার কিছু নেই বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, অন্যান্য অসুখের মতো ব্রেস্ট ক্যানসারও শুরুতে ধরা পড়লে রোগীকে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। তবে প্রাইমারি স্টেজে ক্যানসার নির্ণয়ের জন্য সবার আগে প্রয়োজন জনসচেতনতা। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি চিকিৎসকদেরও সচেতন হতে হবে। অথচ কয়েক বছর আগেও ছবিটা ছিল অন্যরকম। এ দেশের মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি অনেক কম ছিল। আর এখন ইউরোপ, আমেরিকার থেকেও অনেক বেশি সংখ্যক ভারতীয় মহিলা স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন। সচেতনতার অভাবে মৃত্যুও হচ্ছে অনেক বেশি। সমস্ত ক্যানসারে আক্রান্তদের মধ্যে ২৫ থেকে ৩১ শতাংশ মহিলা স্তন ক্যানসারে ভুগছেন। কলকাতার এই হার ২৬ শতাংশ। সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় জানা গেছে, কয়েক দশক আগে ৫০ উত্তীর্ণ মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি ছিল ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ। আর ৫০ বছরের নিচে এই হার ছিল ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ। কিন্তু বদলে যাওয়া খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, সেকেন্ডারি লাইফ-স্টাইল, ওভার ওয়েট ইত্যাদি কয়েকটি কারণে চাইল্ড বিয়ারিং এজ এ অর্থাৎ ৪০ বছরের কম বয়সী মহিলাদের মধ্যেও ব্রেস্ট ক্যানসারের ঝুঁকি ভীষণভাবে বাড়ছে। ব্রেস্ট ক্যানসারের রোগীদের ৫০ শতাংশের বয়স ২৫ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে। তাই এ ব্যাপারে সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে এখন থেকেই। যাদের পরিবারে স্তন ক্যানসারের ইতিহাস আছে, তাদের ২০ বছর পেরোলেই নিয়মিত সেলফ ব্রেস্ট এক্সামিনেশন করা জরুরি। একই সঙ্গে স্তনের যে কোনও রকম সমস্যায় অবশ্যই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। সংকোচ করে রোগ গোপন করলে পরবর্তীকালে সমস্যা উত্তরোত্তর বাড়তেই থাকবে। আরও একটা কথা জেনে রাখা ভাল যে ব্রেস্টের কোনও লাম্প বা টিউমার মানেই যে ক্যানসার, তা কিন্তু নয়। সফট টিস্যু বিনাইন ডিজিজ হলে সামান্য চিকিৎসাতে তা সেরে ওঠে। যাই হোক না কেন সেলফ মেডিকেশন বা সংকোচ করে রোগ জটিল না করতে তিনি পরামর্শ দেন।

 

লাইফ স্টাইল



Editor : Husnul Bari
Address : 8/A-8/B, Gawsul Azam Super Market, Newmarket, Dhaka-1205
Contact : 02-9674666, 01611504098

Powered by : Digital Synapse